24 C
Kolkata
Wednesday, May 12, 2021

বিদেশ থেকে আসা অক্সিজেন কোথায় যাচ্ছে, মোদীকে প্রশ্ন কংগ্রেসের – Kolkata24x7 | Read Latest Bengali News, Breaking News in Bangla from West Bengal’s Leading online Newspaper

Must read

নয়াদিল্লি : দেশজুড়ে তান্ডব চালাচ্ছে করোনা। অতিমারীর ছোবলে বিপর্যস্ত জনজীবন। পরিস্থিতি ক্রমশ ভয়ংকর থেকে অতি ভয়ংকরের দিকে এগোচ্ছে। এই অবস্থায় ভারতের করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় মেডিক্যাল সরঞ্জাম, অক্সিজেন দিয়ে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে বিশ্বের বহু দেশ। কঠিন সময়ে পাশে এসে দাঁড়াচ্ছেন বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধানরা।

কিন্তু বিদেশ থেকে আসা অক্সিজেন সিলিন্ডার, ভেন্টিলেটর সহ যাবতীয় করোনার ত্রাণ সামগ্রী ঠিক কোথায় যাচ্ছে, কোন কোন জায়গা থেকে এগুলি পাওয়া যাবে তা জানতে এবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন কংগ্রেসের মুখপাত্র পবন খেরা।

এদিন তিনি বলেন, ” করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় এখনও পর্যন্ত বিশ্বের ৪০ টি দেশ ভারতে গত কয়েক সপ্তাহে প্রচুর ত্রাণ সামগ্রী পাঠিয়ে দিয়েছে। যেগুলির মধ্যে রয়েছে অক্সিজেন, পিপিই কিট, মাস্ক, ভেন্টিলেটর এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ মেডিক্যাল সামগ্রী। সেগুলি সবই দিল্লি বিমানবন্দর থেকে গ্রহণ করেছেন বিদেশমন্ত্রী এস. জয়শঙ্কর। কিন্তু এই ত্রাণ সামগ্রীগুলি আসার পর সেগুলি কোথায় যাচ্ছে তা সাধারণ মানুষকে অবগত করা হচ্ছে না। ফলে সাধারণ মানুষের কাছে এই বিষয়ে কোনও স্বচ্ছ ধারণা নেই।”

তিনি আরও বলেন, ” ত্রাণ সামগ্রীগুলি কোথা থেকে আসছে এবং কোথায় কোথায় সেগুলি সরবরাহ করা হয়েছে তা জানার অধিকার এদেশের জনগণের রয়েছে। যদিও সরকার এইদিকে নজর না দিয়ে সংবাদ শিরোনামে থাকতে বেশি ব্যস্ত রয়েছে। যার ফলে অসংখ্য মানুষ অক্সিজেনের অভাবে মারা যাচ্ছেন।”

এই বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সমালোচনা করে এইআইএমআইএম (AIMIM) প্রধান আসাদউদ্দিন ওয়াসি টুইট করে বলেন, “বিশ্বের বহু দেশ ভারতকে প্রচুর সাহায্য পাঠাচ্ছে। এটি সমস্ত ভারতীয়দের জন্যই পাঠানো হয়েছে।
এই সমস্ত ত্রাণ সামগ্রীগুলি প্রধানমন্ত্রীর একার সম্পত্তি নয়। এটা সবার জন্য। তাহলে আমরা কেন জানতে পারব না কতটা পরিমাণ ত্রাণ এসেছে এবং সেগুলি সব কোথায় যাচ্ছে?”

যদিও এর আগে বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র অরিন্দম বাগচী জানিয়েছেন, কাতার থেকে ৩ টি কার্গো প্লেনে ভেন্টিলেটর, অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর এবং পিপিই কিট সহ ৩০০ টন মেডিকেল সরঞ্জাম পাঠানো হয়েছে। এগুলি দিল্লি, মুম্বই এবং বেঙ্গালুরুতে বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়াও ইতালি থেকে একটি অক্সিজেন প্রোডাকশন প্ল্যান্ট এবং ২০ টি ভেন্টিলেটর সরবরাহ করা হয়েছে।

শুধু তাই নয়, গত কয়েকদিনে ব্রিটেন থেকে আরও ৬০ টি ভেন্টিলেটর সরবরাহ করা হয়েছে এবং গত ২৪ ঘন্টায় আরও ১০০ টি ভেন্টিলেটর পাঠানোর কথা জানানো হয়েছে। এছাড়াও ৭২৩ টি অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর পাঠানো হয়েছে।

তবে সরকারি ডেটায় দেখানো হয়েছে যে, ভারত ফ্রান্স থেকে ৮ টি এবং ইতালি থেকে ১টি অক্সিজেন জেনারেটর পেয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে ১.২৫ লক্ষ এবং বেলজিয়াম থেকে ৯ হাজার অক্সিজেন জেনারেটর পেয়েছে। জার্মানি থেকে এখনও পর্যন্ত ২ হাজার রেমডেসিভির পেয়েছে।

এছাড়াও কয়েক সপ্তাহ আগে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে ১৭ টি বড় অক্সিজেন সিলিন্ডার, সহ ৪২৩ টি রেগুলেটর সহ অক্সিজেন সিলিন্ডার, ১,০২৮ টি টাইপ-এইচ অক্সিজেন সিলিন্ডার এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ মেডিকেল সামগ্রী ভারতে পাঠিয়েছে।

এছাড়াও রাশিয়া থেকে ২০ টি বড় অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর, ৭৫ টি ভেন্টিলেটর, ১৫০ বেডসাইড মনিটর এবং ফ্যাবিপিরাবির(Favipirabir) দুই লক্ষ প্যাক পাঠিয়েছে। আয়ারল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, রোমানিয়া, থাইল্যান্ড, জার্মানি, উজবেকিস্তান এবং মরিশাস থেকেও করোনা চিকিৎসার প্রয়োজনীয় সামগ্রী পাঠানো হয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া…! ‘রঙ’ ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা ‘খাচ্ছে’? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম ‘সংবাদ’!

‘ব্রেকিং’ আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের।

কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে ‘রঙ’ লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে ‘ফেক’ তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই ‘ফ্রি’ নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

Source

- Advertisement -spot_img

More articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest article