27.1 C
Kolkata
Thursday, May 13, 2021

তৃণমূলের জয়কে ‘নারী শক্তি’র জয় বললেন রাজ – Kolkata24x7 | Read Latest Bengali News, Breaking News in Bangla from West Bengal’s Leading online Newspaper

Must read

কলকাতা: একুশের বিধানসভা নির্বাচন নিয়ে বিগত কয়েক মাস ধরে পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য রাজনীতি ছিল উত্তপ্ত। মুখ আর মুখোশে কার কোন রং কার কোন দল চেনা ছিল মুশকিল। গেরুয়া শিবির এবং সবুজ শিবির একাধিক তারকা সম্বলিত প্রার্থী নির্বাচন করেছিলেন তাঁদের দলের জন্য। তারকা ম্যাজিকে ভর করে অনেকটাই দুই দল নিজেদের অস্তিত্ব এবং প্রভাব বিস্তার করতে চেয়েছিল। তার মধ্যে ছিল সবুজ শিবির থেকে গেরুয়া শিবিরে যোগদান করার ঝোঁক। নানা ধরণের অদ্ভুত সমস্ত অজুহাত দিয়ে এই দল ছেড়ে ওই দলে গেছেন অনেকেই।

আবার অন্যদিকে মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির হাত শক্ত করতে তাঁর পাশেই দাঁড়িয়ে ছিলেন রাজ চক্রবর্তী, জুন মালিয়া, সায়ন্তিকা, কৌশানি মুখার্জি, কাঞ্চন মল্লিক সহ একাধিক অভিনেতা-অভিনেত্রীরা।
ব্যালট পেপারে জনগণ কী চায় তার ফলাফল বেরিয়েছে গতকাল। বেশ কিছু ক্ষেত্রে তারকা ম্যাজিক কাজ না করলেও রাজ চক্রবর্তীর পায়ে হেঁটে নিজের কেন্দ্র ঘুরে দেখার পরিশ্রম বৃথা যায়নি। বৃথা যায়নি এই গরমেও তৃণমূল প্রার্থীদের জন্য দেবের ঘাম ঝরানো প্রচার।

ব্যারাকপুর বিধানসভা কেন্দ্রে তৃণমূলের বিজয়ী প্রার্থী রাজ চক্রবর্তী। কাল নিজের এলাকায় চলে গিয়েছিলেন তিনি। কথা বলেছিলেন সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে। আজ সকালে রাজ চক্রবর্তী জানালেন তৃণমূল সরকারের এই জিত, মমতা ব্যানার্জির ওপর মানুষের ভরসা এবং নিজের জয়লাভ নিয়ে তিনি কী ভাবছেন। একটি লম্বা পোস্ট করে নিজের সোশ্যাল সাইটে তিনি জানান এই জয় বাংলার মানুষের জয়, মা মাটি মানুষের জয় এবং নারী শক্তির জয়।

রাজ চক্রবর্তীর সোশ্যাল সাইট থেকে:

“এই জয় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়-এর কঠোর পরিশ্রমের জয়৷ এই জয় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়-এর সততার জয়। এই জয় তৃণমূল কর্মীদের মাটি আঁকড়ে লড়াই করবার জয়৷ এই জয় বাংলার মা- মাটি- মানুষের জয়। এই জয় বাংলার নারীশক্তির জয়৷ এই জয় বাংলার সংস্কৃতির৷ এই জয় বাংলার মনিষীদের জয়৷ এই জয় বাংলার উন্নয়নের। এই জয় বাংলার মানুষের ভালোবাসার জয়।

আমরা কৃতজ্ঞ। কথা দিয়েছিলাম, আপনারা যদি আমায় ১০৮ বারাকপুর বিধানসভা থেকে বিধায়ক হিসেবে নির্বাচিত করেন, আপনাদের সেবায় আমি নিজেকে নিয়োজিত করবো। নিজেদের মূল্যবান ভোট দিয়ে আপনারা কথা রেখেছেন। এবার পালা আমার। কথা দিলাম, আগামী পাঁচ বছর আপনাদের পাশে থাকবো। যে কোনো পরিষেবা পৌচ্ছে দিতে আমি প্রস্তুত। পালিয়ে যাবো না ।

এই মূহুর্তে করোনা মহামারী আমাদের জন্যে সব থেকে ভয়াভয় হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ মহামারীর বিরুদ্ধে আমরা লড়বো একসাথে। বারাকপুর ও টিটাগড়ে আমরা ওয়ার্ড ভিত্তিক একটি পরিকাঠামো গঠন করবো। মানুষের যেকোনো সমস্যায় আমাদের পরিষেবা পৌচ্ছে যাবে আপনাদের দোর গোড়ায় ৷ সকলে ভালো থাকুন ও সবাইকে ভালো রাখুন। জয় বাংলা।
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জিন্দাবাদ।
অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় জিন্দাবাদ।
তৃণমূল কংগ্রেস জিন্দাবাদ।
মা-মাটি-মানুষ জিন্দাবাদ।
জয় বাংলা ।”

লাল-নীল-গেরুয়া…! ‘রঙ’ ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা ‘খাচ্ছে’? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম ‘সংবাদ’!

‘ব্রেকিং’ আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের।

কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে ‘রঙ’ লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে ‘ফেক’ তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই ‘ফ্রি’ নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

Source

- Advertisement -spot_img

More articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest article