27.1 C
Kolkata
Thursday, May 13, 2021

ছোট থেকে নিয়মিত শরীরচর্চা করলে তবেই খুলবে বুদ্ধি, বলছে নয়া সমীক্ষা!

Must read

#ক্যালিফোর্নিয়া: নিয়মিত শরীরচর্চা এবং শৈশবে একটি স্বাস্থ্যকর ডায়েট অনুসরণ করলে মস্তিষ্ক বৃদ্ধি পাওয়ার এবং অকারণে উদ্বেগ কম হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ক্যালিফোর্নিয়া, রিভারসাইডের গবেষকরা দেখেছেন যে প্রাথমিক জীবনে ব্যায়াম করলে প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার পর তা উদ্বেগ ও অস্থির আচরণ হ্রাস করে। পাশাাশি সুগঠিত পেশি এবং মস্তিষ্কের ভরও বৃদ্ধি করে।

গবেষণাটি ইঁদুরদের দিয়ে করা হয়েছিল। পাশ্চাত্য ধারার বেশি চর্বি এবং চিনিতে ভরপুর ডায়েট পেয়ে এরা স্থূল হয়ে ওঠে এবং অস্বাস্থ্যকর খাবারের প্রতি এক আকর্ষণ তৈরি হয় এদের। সেই সব ভেবে চিন্তেই গবেষকরা তরুণ ইঁদুরদের চারটি গ্রুপে বিভক্ত করেছেন- যারা ব্যায়াম করে, যারা ব্যায়াম করে না, যারা সুষম ও স্বাস্থ্যকর খাবার খেয়েছে এবং যারা পাশ্চাত্য ডায়েট অনুসরণ করেছে।

ইঁদুরগুলির দুধ খাওয়া ছাড়ার পর পরই তাদের ডায়েটে রাখাী শুরু হয়েছিল এবং তিন সপ্তাহ ধরে যৌন পরিপূর্ণতা আসা পর্যন্ত তা চলেছে। অতিরিক্ত আট সপ্তাহের “ওয়াশআউট” এর পরে, যখন সমস্ত ইঁদুরকে চাকা ছাড়াই এবং স্বাস্থ্যকর ডায়েটে রাখা হয়েছিল, গবেষকরা আচরণগত বিশ্লেষণ করেছেন, বায়বীয় ক্ষমতা এবং বিভিন্ন বিভিন্ন হরমোনের মাত্রা পরিমাপ করেছেন।

প্রাথমিক জীবনের অনুশীলন লেপটিনের মাত্রা বাড়িয়ে তোলে, এটি একটি হরমোন যা শরীরের ওজন নিয়ন্ত্রণ করে। তাছাড়া যে ডায়েটই অনুসরণ করা হোক না কেন এই হরমোন শরীরের ফ্যাট মাসও নিয়ন্ত্রণ করে। তাই বলা হচ্ছে জীবনের প্রথম বছরগুলিতে ব্যায়াম করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং অতিমারীর পরিপ্রেক্ষিতে আরও বেশি করে প্রযোজ্য।

ইউসিআর এভোলিউশানারি ফিজিওলজিস্ট থিওডোর গারল্যান্ড বলেছেন, “আমাদের অনুসন্ধানগুলি স্থূলতার সাথে সম্পর্কিত। কী ভাবে শারীরিক কসরত হ্রাস এবং ডায়েটারি পরিবর্তন স্থূলতাকে প্রভাবিত করে তার সম্ভাব্য আঙ্গিক বোঝার জন্য এই গবেষণা প্রাসঙ্গিক হতে পারে।”

এই গবেষণা সম্প্রতি ফিজিওলজি অ্যান্ড বিহেভিয়ার জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।

“কোভিড -১৯ এর জন্য লকডাউনের সময়ে, বিশেষত প্রথমদিকে বাচ্চারা খুব কম ব্যায়াম করত। অনেকেই পার্ক যেতে পারত না বা তাদের বাড়িতে উঠোন ছিল না। তাই তাদের কাছে স্কুল ছিল শারীরিক ক্রিয়াকলাপের একমাত্র উৎস। স্টাডি লিড এবং ইউসিআর ফিজিওলজির ডক্টরাল শিক্ষার্থী মার্সেল ক্যাডনি বলেছেন, “এই বাচ্চাদের জন্য সমাধানের সন্ধান করা দরকার যাতে তাঁরা ছোট থেকে বড় হওয়ার সময় সামান্য বেশি মনোযোগ পায়।”



Source

- Advertisement -spot_img

More articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest article