31.1 C
Kolkata
Thursday, May 13, 2021

আপনি করোনাক্রান্ত, রয়েছে নবজাতক! এভাবে নিন যত্ন –

Must read

এই পরিস্থিতি বড়োই কঠিন। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকেই ছোট শিশুরা (Newborn baby) ও হবু মায়েরা ছিলেন সতর্কতার গন্ডির মধ্যে।

আবার তার সঙ্গে জুড়েছেন যারা সদ্য মা হয়েছেন তারাও। সকলেই সন্তানদের ও নিজেদের স্বাস্থ্য নিয়ে এই সময়টায় চিন্তিত।

তাই অনেকের মনেই প্রশ্ন জাগে যে আক্রান্ত মায়ের থেকে সদ্য জন্ম নেওয়া শিশুটি (Newborn baby) এই মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে কিনা। অনেকে এটা নিয়ে মানসিক সমস্যায় পড়েছেন।

কেউ বা আবার না জেনেই সন্তানের ভালোর জন্যে তার থেকে দূরে রয়েছেন। আসলে কোনটা কার্যকরী?

এই বিষয় নিয়ে একটি গবেষণা করা হয়েছে। সেই বিশেষ গবেষণা থেকে জানা গেছে যে একেবারে সঠিক করোনা সংক্রান্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে পারলে এই সময়েও মা করোনা আক্রান্ত হয়ে থাকলেও শিশুর কোনোরকম ক্ষতি হবে না।

আরো পোস্ট- লকডাউনেও পেতে পারেন নতুন চাকরি যদি থাকে এই গুণ

সদ্য হওয়া মা তার মাতৃদুগ্ধ পান করাতে পারবে শিশুকে এবং তারা দুজনেই একই কক্ষে বাস করতে পারবে। আক্রান্ত হওয়ার পরও একজন মা তার শিশুকে মাতৃদুগ্ধ পান করালে কোনো ক্ষতি হবে না সন্তানের।

কারণ একটি সদ্যোজাতের (Newborn baby) শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা (immunity power) গড়ে তুলতে কাজে দেয় ওই দুধ। তবে নিয়ন্ত্রণে থাকতে হবে মাকেও। বেশ কিছু সহজ টিপস তিনি মেনে চলতে পারেন।

১. সারাক্ষন মাস্ক পরে থাকা উচিত মায়ের।

২. শিশুর কাছে যাওয়ার আগে মাকে খুব ভালো করে হাত পরিষ্কার করে নিতে হবে। তা ভুলে গেলে চলবে না। দরকারে তিনি গ্লাভসও পরতে পারেন হাতে। তাছাড়া নিজেকে ও ঘরটিকে বারবার স্যানিটাইজ করতে পারলে খুব ভালো হবে তা।

৩. শিশুকে দুগ্ধ পান করানোর আগে ভালো করে সেই জায়গা পরিষ্কার করতে হবে। মাথায় রাখতে হবে যে মায়ের সারা শরীরে ভাইরাস ছড়িয়ে রয়েছে।

৪. নবজাতক শিশুকে (Newborn baby) মায়ের কে দূরে করে দিলে তার মানসিক প্রভাব শিশুর উপর পড়বে।

১২০ জন শিশুর শারীরিক অবস্থা দেখা হয় একটি গবেষণায়। ১১৬ জন শিশুর মায়ের করোনাভাইরাস পজিটিভ ছিল। দেখা যায় যে জন্মের পর কোনো শিশুরই ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়নি।

লাল-নীল-গেরুয়া…! ‘রঙ’ ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা ‘খাচ্ছে’? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম ‘সংবাদ’!

‘ব্রেকিং’ আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের।

কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে ‘রঙ’ লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে ‘ফেক’ তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই ‘ফ্রি’ নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

Source

- Advertisement -spot_img

More articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest article